জীবনধারা কীভাবে বাঁচতে সাহায্য করে?

দীর্ঘজীবন বা দীর্ঘায়ু কোন ব্যাক্তির নিয়ন্ত্রণে থাকে না তবে স্বাস্থ্যকর জীবন যাত্রা পালন করলে সুস্থ দীর্ঘ জীবন লাভ করা যায়।

আমরা দীর্ঘ জীবনের কথা বলি, কিন্তু দীর্ঘ জীবন পাওয়ার জন্য কি রকম জীবনচর্যা পালন করতে হয় তা কি আমরা জানি? এক্ষেত্রে সমাধান হল – সঠিক খাবার খাওয়া, শরীরচর্চ্চা, মানসিক স্ফুর্তি এবং সঠিক ঘুম কোনও ব্যক্তিকে সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘজীবনের দিকে চালিত করে। সময়ের বিবর্তনের সাথে সাথে শরীরের পক্ষে গ্রহণযোগ্য নয় এমন খাদ্য গ্রহণের দিকে ঝোঁকার প্রবণতা বেড়েছে। এই স্মস্ত অগ্রহণযোগ্য খাদ্য দীর্ঘদিন ধরে গ্রহণের ফলে দেহের বিপাকক্রিয়ার বিপর্যয় ঘটে।ফলে সম্পূর্ণ অভ্যন্তরীণ কার্যকারিতা এবং প্রতি রোধ ক্ষমতা নষ্ট হয়।সেই কারণে দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলি তাদের নিয়মিত ক্রিয়াকলাপ সাধন করতে পারে না। ফলে স্বাস্থ্যের সমস্যা দেখা দেয়।

উদাহরণস্বরূপ: আমরা সকলেই রান্নার তেল ব্যবহার করি এবং বেশিরভাগ সময়েই রিফাইন তেল ব্যবহার করি, তবে আমরা কি কখনও বিবেচনা করেছি যে, তেলটি পোড়ানোর মুহুর্তে তার রাসায়নিক গঠন ভেঙ্গে যায় এবং আমাদের দেহের মধ্যে খুব ক্ষতিকারক উপাদান হিসাবে কাজ করে।এই পোড়া তেল পিচের মতো ক্ষতিকারক যা রাস্তা তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।তাহলে কি আপনি কল্পনা করতে পারেন যে আমরা কোনো রকম বিচার বুদ্ধি ছাড়া কীভাবে আমাদের জীবনযাপন এবং খাদ্যাভাস অনুসরণ করি? আমরা কেবল টিভিতে বিজ্ঞাপনগুলি দেখি এবং এর পেছনের তথ্যগুলি না জেনে আমরা প্রতিদিনের পণ্যগুলি কিনি। এরূপ জীবনধারা আমাদের দীর্ঘ এবং স্বাস্থ্যকর জীবন উপভোগ করতে দেয় না।

আমরা যদি সঠিক জীবন শৈলীর মাধ্যমে না চলি তবে বিভিন্ন ধরণের রোগ, অসুস্থতা আমাদের জীবনকে সংকুচিত করে। সঠিক খাদ্যাভাস, জীবনশৈলী বেছে নিলে সুস্থ ও দীর্ঘ জীবন লাভ করা যায়।
আমরা এমন এক জীবন যাপন পালন করব তাতে দীর্ঘ জীবন লাভ করার আত্মবিশ্বাসে পূর্ণ থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *